আওয়ামী লীগ-জামায়াত পরকীয়া চলছে : ইকবাল হাসান মাহমুদ – দৈনিক মুক্ত বাংলা
ঢাকাসোমবার , ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২
  1. অপরাধ
  2. অর্থনীতি-ব্যবসা
  3. আইন ও আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আরও
  6. ইসলাম ও ধর্ম
  7. কোভিট-১৯
  8. ক্যারিয়ার
  9. খেলা
  10. জেলার খবর
  11. তথ্যপ্রযুক্তি
  12. বিনোদন
  13. মি‌ডিয়া
  14. মু‌ক্তিযুদ্ধ
  15. যোগা‌যোগ
 
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আওয়ামী লীগ-জামায়াত পরকীয়া চলছে : ইকবাল হাসান মাহমুদ

সম্পাদক
সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২২ ৯:২০ অপরাহ্ণ
Link Copied!

সমাবেশের অনুমতি নিয়ে পুলিশ প্রশাসনের ভূমিকার সমালোচনা করেন ইকবাল হাসান মাহমুদ। তিনি বলেন, ‘রাতে শুনলাম, আমরা ধানমন্ডিতে বাংলাদেশে মেডিকেল কলেজের সামনে মিটিং করব। ঘণ্টা দুই পর শুনলাম এই জায়গা বাতিল করেছে। তারপর রাত থেকে এখানে না ওখানে, ওখানে না ওইখানে, হায় রে আমার বাংলাদেশ! বাংলাদেশে নাকি গণতন্ত্র আছে। ওসি অনুমতি দিলে আমরা মিটিং করতে পারব, ওসি অনুমতি না দিলে মিটিং করতে পারব না।’

‘লাঠি আপনারা তুলে দিয়েছেন’

গত কয়েক দিনের মতো আজকের সমাবেশেও বিএনপির কর্মী-সমর্থকেরা লাঠি হাতে আসেন। এর উল্লেখ করে ইকবাল হাসান মাহমুদ বলেন, ‘আজ আমি হঠাৎ করে দেখলাম, আমার ছেলেদের হাতে লাঠি। আমি একটু শঙ্কিত হলাম। কারণ, একটু আগে আমার বন্ধু শাহজাহান ওমর বলে গেছেন, আমাদের দেশের একটা গোষ্ঠী আছে—যারা কানা, বোবা, অন্ধ। তারা বলবে, বিএনপি সহিংস হয়ে গেছে।’

ইকবাল হাসান বলেন, ‘বিএনপি যে আজ কোন দুঃখে লাঠি নিয়ে এসেছে, সেটা বলবে না। আজ বিএনপির কর্মীদের মারতে মারতে এমন একটা জায়গায় নিয়ে এসেছে যে তারা আত্মরক্ষার্থে লাঠি হাতে নিয়েছে। তারা আজ আত্মরক্ষা করছে, আরেক দিন আক্রমণ করলে প্রতিহত করবে। সুতরাং টেলিভিশনে গিয়ে টক শোতে গিয়ে বিএনপির লাঠি নিয়ে আলোচনা কইরেন না। লাঠি আপনারা তুলে দিয়েছেন। বিএনপির কর্মীরা নিজ ইচ্ছায় লাঠি হাতে নেয়নি।’

ইকবাল হাসান মাহমুদ বলেন, ‘আমরা মিটিং করব, একবার বলবেন এখানে, আরেকবার বলবেন ওখানে, আরেকবার বলেন হবে না। তারপর এমন সময় অনুমতি দেবেন, তখন আবার ওনারা (আ.লীগ) অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে আসবেন। আমি আসার সময় একজন বলল, “ভাই, ওদিকে যাইয়েন না।” আমি বললাম, কেন? বলে, “ওখানে ওরা আক্রমণ করছে।” আমি বললাম, পাকিস্তান আর্মি আমাদের মারতে পারেনি, বাংলাদেশের কারও হিম্মত নাই—শাহজাহান ওমর, আমরা যারা বসে আছি, আমাদের মারতে পারে। মরলে হাসিমুখে মরব, বাংলাদেশের একটা মুক্তির জন্য মরব।’

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শাহজাহান ওমর বীর উত্তম আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে সতর্ক করেন। তিনি বলেন, ‘পুলিশ ভাইয়েরা, আপনাদের জানাতে চাই, কোনো সরকার শেষ সরকার নয়। সবারই পতন আছে। সুতরাং রয়েসয়ে কাজ করুন। আপনাদের জীবন অনেক লম্বা। হয়তো ২৫ থেকে ৪০-৫০ বছর বয়স। আল্লাহ চায় তো ৩০ বছর বাঁচবেন। শেখ হাসিনা কি ৩০ বছর ক্ষমতায় থাকবেন? তখন দাদু আপনাদের অবস্থাডা হবে কী? দালালি কম করেন, জনগণের বন্ধু থাকুন।’

কর্মীদের উদ্দেশে বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘আপনাদের এই ত্যাগ, মিটিংয়ের উদ্দেশ্য একটা। আমাদের সবার উদ্দেশ্য খালেদা জিয়াকে সম্পূর্ণভাবে মুক্ত করা, আমাদের নেতা তারেক রহমানকে বীরের বেশে বাংলাদেশে আনা। শোনা যাচ্ছে, ২০২৪ সালে ৮ জানুয়ারি নির্বাচন হবে। সেই নির্বাচনে অবশ্যই আমাদের বিপুল ভোটে জয়যুক্ত হতে হবে।’

দেশের বর্তমান পরিস্থিতিতেও সুশীল সমাজ নীরব ভূমিকা পালন করছে বলে অভিযোগ করেন শাহজাহান ওমর। তিনি বলেন, ‘এই সুশীল সমাজ, এই বিবেকবান মানুষ, এই জ্ঞানী-গুণী মানুষ, আপনাদের একটা সামাজিক দায়িত্ব আছে, নৈতিক দায়িত্ব আছে। দেশ যখন রসাতলে যায়, অধঃপতনে যায়, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে যখন আমরা শ্রীলঙ্কার দিকে ধাবিত হচ্ছি, তখন আপনাদের দায়িত্ব আছে। আপনারা মুখ–কান বন্ধ করে রাখলে চলবে না, দয়া করে মুখ খুলুন। এই জাতিকে হাসিনার চক্র থেকে রক্ষার জন্য অবদান রাখুন।’

সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন ঢাকার মহানগর দক্ষিণ বিএনপির আহ্বায়ক আবদুস সালাম, কেন্দ্রীয় নেতা শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস, শহীদউদ্দিন চৌধুরী, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য শেখ রবিউল আলম, দক্ষিণ বিএনপির সদস্যসচিব রফিকুল আলম প্রমুখ। সভাপতিত্ব করে মহানগর দক্ষিণ বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক সিরাজুল ইসলাম।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।