যুদ্ধ নয়, আলোচনায় সমাধান সম্ভব : প্রধানমন্ত্রী – দৈনিক মুক্ত বাংলা
ঢাকাবুধবার , ৭ ডিসেম্বর ২০২২
  1. অপরাধ
  2. অর্থনীতি-ব্যবসা
  3. আইন ও আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আরও
  6. ইসলাম ও ধর্ম
  7. কোভিট-১৯
  8. ক্যারিয়ার
  9. খেলা
  10. জেলার খবর
  11. তথ্যপ্রযুক্তি
  12. বিনোদন
  13. মি‌ডিয়া
  14. মু‌ক্তিযুদ্ধ
  15. যোগা‌যোগ
 
আজকের সর্বশেষ সবখবর

যুদ্ধ নয়, আলোচনায় সমাধান সম্ভব : প্রধানমন্ত্রী

সম্পাদক
ডিসেম্বর ৭, ২০২২ ৪:২৩ অপরাহ্ণ
Link Copied!

নিজস্ব প্রতি‌বেদক ::

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা যুদ্ধ চাই না, শান্তি চাই। আমি আন্তর্জাতিক মহলেও সবার কাছে এই আহ্বানই জানিয়েছি, এই যুদ্ধ বন্ধ করতে হবে। কোনো সমস্যা থাকলে শান্তিপূর্ণ সমাধান করতে হবে।’

চলমান রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রসঙ্গ টেনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, যুদ্ধ মানব জাতির জন্য কতটা ভয়াবহ, বীভৎস তা সবাই উপলব্ধি করতে পারছে। তাই যুদ্ধ বন্ধ করে আলোচনার মাধ্যমে শান্তিপূর্ণ সমাধানের আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

কক্সবাজারের ইনানী সমুদ্রসৈকতে বুধবার সকালে বাংলাদেশ নৌবাহিনী আয়োজিত প্রথম ‘ইন্টারন্যাশনাল ফ্লিট রিভিউ (আইএফআর)-২০২২’-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন কূটনৈতিক মিশনের সদস্য, সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনীর প্রধানরা, আমন্ত্রিত বিভিন্ন দেশের নৌবাহিনী, কোস্ট গার্ডপ্রধান ও তাদের প্রতিনিধিরা এবং দেশের সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তারা।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘যেকোনো যুদ্ধ মানব জাতির জন্য কী ভয়াবহ পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে পারে ১৯৭১ সালে আমাদের মহান স্বাধীনতাযুদ্ধের সময় তা নিজেরা দেখেছি। আর বর্তমানে যখন রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ চলছে, সেই যুদ্ধের ভয়াবহতা, বীভৎসতা সেটা এখনই আপনার দেখতে পান, অবলোকন করতে পারেন, অনুভব করতে পারেন। আমরা যুদ্ধ চাই না, শান্তি চাই। আমি আন্তর্জাতিক মহলেও সবার কাছে এই আহ্বানই জানিয়েছি, এই যুদ্ধ বন্ধ করতে হবে। কোনো সমস্যা থাকলে শান্তিপূর্ণ সমাধান করতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘বন্ধুত্বপূর্ণভাবে যেকোনো সমস্যার সমাধান করা যায়, এটাই আমরা বিশ্বাস করি। কাজেই শান্তি আমাদের সমৃদ্ধি এনে দেয়।’

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দিকনির্দেশনায় ‘সবার সঙ্গে বন্ধুত্ব, কারও সঙ্গে বৈরিতা নয়’ নীতিতে বাংলাদেশের অবস্থান পুনর্ব্যক্ত করেন প্রধানমন্ত্রী।

সরকারপ্রধান বলেন, ‘জাতি হিসেবে আমরা সর্বদা বৈশ্বিক ও আঞ্চলিক শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানকে অগ্রাধিকার দিয়ে থাকি। সেই নীতি মেনেই আমরা সবার সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রেখে রাষ্ট্র পরিচালনা করছি। বিশেষ করে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে এই নীতিমালাই মেনে চলি। আমাদের কাছে প্রতিবেশী এবং আঞ্চলিক সব দেশের সঙ্গে আমাদের বন্ধুত্বপূর্ণ সুসম্পর্ক বজায় রয়েছে।’

টানা তিন মেয়াদের প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা বিশ্বাস করি সংঘাত নয়, সমঝোতা এবং আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে যেকোনো সমস্যার সমাধান সম্ভব। বাংলাদেশের সশস্ত্র বাহিনীকে শক্তিশালী করা হচ্ছে যুদ্ধ করার জন্য নয়। আমাদের লক্ষ্য শান্তি এবং সৌহার্দ্য স্থাপন করা, বাংলাদেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব রক্ষা করা।’

দেশে প্রথমবারের মতো ‘আইএফআর ২০২২’ আয়োজন করায় নৌবাহিনীকে ধন্যবাদ জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘আমি অংশগ্রহণকারী সব দেশ, বিভিন্ন দেশের নৌপ্রধান এবং প্রতিনিধিদলকে ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা জানাচ্ছি।’

বর্তমানে ভারত মহাসাগরের কৌশলগত এবং অর্থনৈতিক গুরুত্ব বেড়েছে বলে মনে করেন শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘বিশ্ব বাণিজ্যের ৯০ শতাংশ হয় সমুদ্রপথে। অবাধ বৈশ্বিক বাণিজ্যের স্বার্থেই সমুদ্রকে নিরাপদ রাখতে হবে। সামুদ্রিক ব্যবসা-বাণিজ্য, অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি এবং সমুদ্র সম্পদ আহরণ ও অনুসন্ধানের বিশাল সুযোগ ও সম্ভাবনা রয়েছে।’

আর তাই কক্সবাজারে সমুদ্র গবেষণা কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে বলে জানান তিনি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের সরকার সমুদ্র সম্পদের এই অপার সম্ভাবনা উপলব্ধি করে বাংলাদেশের সামুদ্রিক খাতের উন্নয়নে ব্যাপক উদ্যোগ নিয়েছে। তবে সমৃদ্ধ অর্থনীতি কেবল তখনই সম্ভব, যখন আমরা সমুদ্রে একটি নিরাপদ এবং সুরক্ষিত পরিবেশ নিশ্চিত করতে পারব।

‘সে লক্ষ্যে আমরা সমুদ্র সম্পদ রক্ষায় পরিকল্পিত সক্ষমতা বৃদ্ধিসহ সময়ের সঙ্গে সঙ্গে গুণগত উন্নয়নমূলক কর্মসূচির মাধ্যমে আমাদের নৌবাহিনীর আধুনিকায়ন করছি।’

তিনি বলেন, ‘আন্তর্জাতিক ভৌগোলিক সীমানার মাধ্যমে আমাদের সব দেশ বিভক্ত হলেও বন্ধুত্বের সেতু বন্ধনে সমুদ্র উপকূলীয় সব দেশের সঙ্গে আমরা একই সূত্রে গাঁথা। বিশাল জলরাশি প্রকৃতপক্ষে আমাদের এক করেছে।’

আইএফআর-২০২২ সবার মধ্যে বন্ধুত্বকে আরও সুদৃঢ় করতে সক্ষম হবে বলেও বিশ্বাস করেন শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ বিপুল সম্ভাবনার দেশ। আমি আশা করি, আইএফআর-এ অংশগ্রহণকারী বিভিন্ন দেশের প্রতিনিধিরা বাংলাদেশের সমুদ্র, সমুদ্র তীরবর্তী অঞ্চলের অবকাঠামো উন্নয়নের অপার সম্ভাবনা, পর্যটন সর্ম্পকে সম্যক ধারণা পাবেন।’

এ ফ্লিট রিভিউতে বাংলাদেশসহ ২৮টি দেশ অংশ নিয়েছে। আগামী ৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত এটি চলবে।

আইএফআর-২০২২ এ অংশগ্রহণকারী ২৮টি রাষ্ট্র হলো- বাংলাদেশ, অস্ট্রেলিয়া, চীন, ভারত, মিশর, জার্মানি, ইন্দোনেশিয়া, ইরান, ইতালি, জাপান, কোরিয়া, মালয়েশিয়া, মালদ্বীপ, মিয়ানমার, নাইজেরিয়া, নেদারল্যান্ডস, ওমান, প্যালেস্টাইন, সুদান, সৌদি আরব, সিঙ্গাপুর, শ্রীলংকা, তানজানিয়া, থাইল্যান্ড, তুরস্ক, সংযুক্ত আরব আমিরাত, যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্র।

ইনানি সমুদ্র সৈকতের অনুষ্ঠানস্থলে এসে পৌঁছালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে স্বাগত জানান বাংলাদেশ নৌবাহিনী প্রধান এডমিরাল মোহাম্মদ শাহীন ইকবাল।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই নৌবাহিনীর প্রথা অনুযায়ী ‘শিপস বেল’ বাজিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের অংশ হিসেবে আগত বিভিন্ন দেশের নৌসদস্যদের অংশগ্রহণে বর্ণাঢ্য কুজকাওয়াজ হয়। পরে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর বিশেষায়িত ফোর্স সোয়াড্স কর্তৃক সমুদ্রে বিশেষ মহড়া হয়।

অনুষ্ঠানে আগত অতিথিদের সম্মানে বাংলাদেশের ঐতিহ্য ও সংস্কৃতিকে তুলে ধরতে দৃষ্টিনন্দন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়।

এরপর প্রধানমন্ত্রী জাতির পিতার স্মৃতি অবলম্বনে নির্মিত চিত্রপ্রদর্শনী ‘বঙ্গবন্ধু কর্নার’দেখেন। অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্যায়ে প্রধানমন্ত্রী আইএফআর উপলক্ষে নির্মিত অত্যাধুনিক কজওয়ে ও জেটি উদ্বোধন করেন।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।