রাজনৈতিক দল হিসেবে নিবন্ধন আপিল শুনানির জন্য জামায়াতকে দুই মাস সময়, নতুবা খারিজ – দৈনিক মুক্ত বাংলা
ঢাকামঙ্গলবার , ৩১ জানুয়ারি ২০২৩
  1. অপরাধ
  2. অর্থনীতি-ব্যবসা
  3. আইন ও আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আরও
  6. ইসলাম ও ধর্ম
  7. কোভিট-১৯
  8. ক্যারিয়ার
  9. খেলা
  10. জেলার খবর
  11. তথ্যপ্রযুক্তি
  12. বিনোদন
  13. মি‌ডিয়া
  14. মু‌ক্তিযুদ্ধ
  15. যোগা‌যোগ

রাজনৈতিক দল হিসেবে নিবন্ধন আপিল শুনানির জন্য জামায়াতকে দুই মাস সময়, নতুবা খারিজ

সম্পাদক
জানুয়ারি ৩১, ২০২৩ ১:৫৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

এক রিটের চূড়ান্ত শুনানি নিয়ে সংখ্যাগরিষ্ঠ মতের ভিত্তিতে রাজনৈতিক দল হিসেবে জামায়াতে ইসলামীর  নিবন্ধন অবৈধ ঘোষণা করে ২০১৩ সালের ১ আগস্ট রায় দেন হাইকোর্টের তিন সদস্যের বৃহত্তর বেঞ্চ। একই সঙ্গে আদালত এই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করার সনদ দেন। এরপর রায়ের বিরুদ্ধে ওই বছরই আপিল করে দলটি।
আদালতে জামায়াতের পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট অন রেকর্ড জয়নুল আবেদীন তুহিন। রিট আবেদনকারীর পক্ষে ছিলেন আইনজীবী তানিয়া আমীর। শুনানিতে সময়ের কথা উল্লেখ করেন আইনজীবী জয়নুল আবেদীন তুহিন। আদালত বলেন, দুই মাস। এ সময় আইনজীবী তানিয়া আমীর বলেন, ছয় সপ্তাহ সময় দেওয়া যেতে পারে। এরপর আদালত বলেন, দুই মাস সময় মঞ্জুর করা হলো, সঙ্গে ডিফল্ট অর্ডার।

পরে জ্যেষ্ঠ আইনজীবী তানিয়া আমীর প্রথম আলোকে বলেন, ‘আপিলটি শুনানির জন্য অনেকবার উদ্যোগ নিয়েছি। আদালত তাঁদের অনেকবার সময় দিয়েছেন। ওনারা গড়িমসি করে ফাইল প্রস্তুত করছেন না। আপিল বিভাগ আদেশ দিলেন, যদি দুই মাসের মধ্যে তাঁরা আপিলের সারসংক্ষেপসহ ফাইল শুনানির জন্য প্রস্তুত না করেন, তাহলে তাঁদের আপিল খারিজ হয়ে যাবে। তাঁরা যদি তাঁদের করা আপিল আদৌ শুনানি করতে চান, তাহলে ফাইল প্রস্তুত করে এই সময়ের মধ্যে শুনানি করতে হবে।’
অবশ্য আপিল বিভাগের আদেশ পালন করা হবে বলে জানিয়েছেন আপিলকারীপক্ষের আইনজীবী ইমরান এ সিদ্দিক।

এর আগে রাজনৈতিক দল হিসেবে ২০০৮ সালের ৪ নভেম্বর বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীকে নিবন্ধন দেয় নির্বাচন কমিশন (ইসি)। রাজনৈতিক দল হিসেবে জামায়াতকে নির্বাচন কমিশনের দেওয়া নিবন্ধনের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে ২০০৯ সালে রিট আবেদন করেন তরিকত ফেডারেশনের তৎকালীন মহাসচিব সৈয়দ রেজাউল হক চাঁদপুরীসহ ২৫ ব্যক্তি। প্রাথমিক শুনানি নিয়ে ওই বছরের ২৫ জানুয়ারি হাইকোর্টের একটি দ্বৈত বেঞ্চ রুল দেন।

রুলে রাজনৈতিক দল হিসেবে ২০০৮ সালের ৪ নভেম্বর বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর নিবন্ধন গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের ৯০বি (১)(বি)(২) এবং ৯০সি অনুচ্ছেদের সঙ্গে সাংঘর্ষিক ও সংবিধানপরিপন্থী ঘোষণা করা হবে না কেন, তা জানতে চাওয়া হয়। জামায়াতের তৎকালীন সেক্রেটারি জেনারেল, দলের তৎকালীন আমির, নির্বাচন কমিশনসহ চার বিবাদীকে রুলের জবাব দিতে বলা হয়। রুলের ওপর শুনানি শেষে হাইকোর্ট রায় দেন। এরপর রায় স্থগিত চেয়ে জামায়াত আপিল বিভাগের চেম্বার আদালতে আবেদন করে, যা ২০১৩ সালের ৫ আগস্ট খারিজ হয়।

এরপর ২০১৮ সালের ৭ ডিসেম্বর বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর নিবন্ধন বাতিল করে প্রজ্ঞাপন জারি করে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ ১৯৭২-এর আওতায় রাজনৈতিক দল হিসেবে জামায়াতে ইসলামী নিবন্ধনের জন্য আবেদন করেছিল। এর পরিপ্রেক্ষিতে ২০০৮ সালের ৪ নভেম্বর জামায়াতে ইসলামীকে নিবন্ধন দেওয়া হয়েছিল। দলটির নিবন্ধন নম্বর ছিল ১৪। ২০০৯ সালে হাইকোর্টে করা ৬৩০ নম্বর রিট পিটিশনের রায়ে আদালত জামায়াতে ইসলামীর নিবন্ধন অবৈধ ও বাতিল ঘোষণা করায় গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের ৯০এইচ ধারা অনুযায়ী জামায়াতে ইসলামীর নিবন্ধন বাতিল করা হলো।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।