খালেদা জিয়া মুক্ত হলেই গণতন্ত্র মুক্তি পাবে: ফখরুল – দৈনিক মুক্ত বাংলা
ঢাকাবৃহস্পতিবার , ৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৩
  1. অপরাধ
  2. অর্থনীতি-ব্যবসা
  3. আইন ও আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আরও
  6. ইসলাম ও ধর্ম
  7. কোভিট-১৯
  8. ক্যারিয়ার
  9. খেলা
  10. জেলার খবর
  11. তথ্যপ্রযুক্তি
  12. বিনোদন
  13. মি‌ডিয়া
  14. মু‌ক্তিযুদ্ধ
  15. যোগা‌যোগ

খালেদা জিয়া মুক্ত হলেই গণতন্ত্র মুক্তি পাবে: ফখরুল

সম্পাদক
ফেব্রুয়ারি ৯, ২০২৩ ৩:৩৮ অপরাহ্ণ
Link Copied!

নিজস্ব প্রতি‌বেদক ::

সরকার বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে  রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে, বিভিন্ন অসত্য মামলা দিয়ে জামিনের নামে বন্দি করে রেখেছে বলে জানিয়েছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেন, সরকার খালেদা জিয়াকে বন্দি করে রেখেছে মানে তারা আসলে গণতন্ত্রকে বন্দি রেখেছে। বেগম খালেদা জিয়া এবং গণতন্ত্র এখন সমার্থক বিষয়। খালেদা জিয়া মুক্ত হলেই বন্দি গণতন্ত্রের মুক্তি মিলবে।

বৃহস্পতিবার (৯ ফেব্রুয়ারি) দলের ভারপ্রাপ্ত দপ্তর সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স সই করা এক বিবৃতিতে এসব কথা বলেন ফখরুল।

বিবৃতিতে মির্জা ফখরুল বলেন, জনগণ আজ গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের সংগ্রামে অবতীর্ণ। গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি, গণতন্ত্রবিরোধী সরকারের পদত্যাগ, নির্দলীয়, নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবি সন্নিবেশিত করে ১০ দফা দাবি উপস্থাপন করা হয়েছে। ইতোমধ্যেই এই ১০ দফা দাবি জনগণের ব্যাপক সমর্থন লাভ করেছে। সরকার এই দাবিকে অগ্রাহ্য করে একদলীয় কর্তৃত্ববাদী শাসন অব্যাহত রাখতে ষড়যন্ত্র করছে। হত্যা, গুম, খুন, মিথ্যা মামলা, গ্রেপ্তার ও ব্যাপক দমন-নিপীড়ন চালিয়ে, মানবাধিকার হরণ করেও আন্দোলন দমন করতে পারছে না। সব বাধা পেরিয়ে আন্দোলন দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে।

বিবৃতিতে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ৮ ফেব্রুয়ারি, বাংলাদেশের রাজনীতির ইতিহাসে এক কলঙ্কজনক দিন। ২০১৮ সালের এই দিনে প্রতিহিংসাপরায়ণ আওয়ামী লীগ সরকার রাজনৈতিক প্রতিহিংসার বশবর্তী হয়ে বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী, তিনবারের নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে ১/১১’র জরুরি অবস্থায় সরকারের বিরাজনীতিকরণের মিথ্যা মামলায় ফরমায়েশি সাজা দিয়ে অন্যায়ভাবে আটক করেছে। শুধু ফরমায়েশি সাজা দিয়ে তাকে আটক রাখা হয়নি, তার প্রাপ্য জামিনের অধিকার কেড়ে নিয়ে ২৫ মাস অন্যায়ভাবে তাকে কারাগারে বন্দি করে রেখেছিল।

ফখরুল বলেন, বন্দি থাকা অবস্থায় সুচিকিৎসা না পাওয়ায় তার শারীরীক অসুস্থতা আরও তীব্র হয় এবং তার জীবন হুমকির মুখে পড়ে। এ সময় খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে ব্যাপক আন্দোলন গড়ে ওঠে। এই আন্দোলনকেও দমন করতে সরকার নিষ্ঠুর নির্যাতন চালায়। দেশ-বিদেশে সর্বত্র বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবি সোচ্চার হয়। আইনগতভাবে বারবার তার জামিনের আবেদন করা হলেও সরকারের হস্তক্ষেপে জামিন দেওয়া হয়নি। আইনি লড়াই করতে বিদেশ থেকে আইনজীবী আসতে চাইলেও সরকারের আপত্তির কারণে তাকে আসতে দেওয়া হয়নি। পরে বেগম খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে শর্তসাপেক্ষে সরকার তার সাজা ছয় মাসের জন্য স্থগিত করে তাকে প্রকারান্তরে গৃহবন্দি করে রাখা হয়েছে।

মির্জা ফখরুল বলেন, উন্নত এবং উপযুক্ত সুচিকিৎসার জন্য চিকিৎসকরা বেগম খালেদা জিয়াকে বিদেশে বিশেষায়িত হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা করানোর সুপারিশ করলেও সরকার তাকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে যেতে দেয়নি।

এসব ঘটনায় দিবালোকের মতো সত্য প্রমাণিত হয় যে, সরকারের অগণতান্ত্রিক, গণবিরোধী, আইন পরিপন্থি কার্যকলাপ, দুর্নীতি, লুটপাট, ভোটের নামে প্রহসন নির্বিঘ্নে চালিয়ে যেতে বর্তমান সরকার খালেদা জিয়াকে রাজনীতি ও নির্বাচন থেকে দূরে রাখার জন্যই ফরমায়েশি সাজা দিয়ে, তার সব আইনগত অধিকার কেড়ে নিয়ে তাকে আটক করে রেখেছে। অপরাধ না করার পরও এই সরকার বেগম খালেদা জিয়াকে হেয়প্রতিপন্ন ও জনগণকে বিভ্রান্ত করতে তার বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করছে, প্রোপাগান্ডা ছড়াচ্ছে। কিন্তু জনগণ জানে ও বিশ্বাস করে তাদের প্রিয় নেত্রী কোনো অপরাধ করেননি। শুধু সরকারের রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে বেগম খালেদা জিয়ার ওপর নির্মম, নিষ্ঠুর জুলুম নেমে এসেছে বলেও জানান বিএনপি মহাসচিব

তিনি বলেন, খালেদা জিয়া জনগণের কল্যাণে, অধিকার আদায়ে এবং গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় নিরন্তরভাবে লড়াই করে চলেছেন। এজন্য জনগণ তাকে ‘দেশনেত্রী’, ‘আপসহীন নেত্রী’, ‘গণতন্ত্রের মাতা’ বলে অবিহিত করে। বেগম খালেদা জিয়ার আপসহীন নেতৃত্বের কারণেই ৯০ দশকে স্বৈরাচারের পতন হয়েছে। একটি সফল গণঅভ্যুত্থানের নেতৃত্ব দিয়েছেন তিনি, রূপকারও ছিলেন তিনি। স্বৈরাচারের পতনের পর তার হাত ধরেই দেশে সংসদীয় গণতন্ত্রের নবযাত্রা শুরু হয়েছে। ৯০ পরবর্তী অবাধ-সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনে জনগণের বিপুল রায়ে রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব পেয়ে তিনি স্বৈরাচারের ধ্বংসস্তূপের ওপর আধুনিক বাংলাদেশ বিনির্মাণের যাত্রা শুরু করেছিলেন। তার নেতৃত্বেই সে সময় বিশ্বে বাংলাদেশ ‘ইমার্জিং টাইগার’ বা উদীয়মান বাঘ হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছিল।

বিএনপির মহাসচিব বলেন, ২০০১ সালের নির্বাচনের পরে তার নেতৃত্বে বিএনপি প্রতিকূল পরিবেশ উপেক্ষা করে গণতন্ত্র ও উন্নয়নের যাত্রা অব্যাহত রাখে। সে সময় অর্থনীতির ব্যাপক উন্নয়ন ঘটেছিল, কৃষি, শিল্প, ব্যবসা-বাণিজ্যে এবং প্রবৃদ্ধির হাড় ৭ শতাংশেরও অধিক হয়েছিল। ব্যাপক কর্মসংস্থান, অবৈতনিক নারীশিক্ষা, শিক্ষার বিনিময়ে খাদ্য কর্মসূচি, নারীর ক্ষমতায়ন, কারিগরি শিক্ষা, ক্ষুদ্র-কুটির শিল্পের ব্যাপক প্রসার, বৃক্ষরোপণ, মৎস্যচাষ, রাস্তাঘাট, ব্রিজ, কালভার্টের ব্যাপক উন্নয়ন, অনগ্রসর জনগোষ্ঠীর আর্থসামাজিক উন্নয়ন ঘটেছিল। গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে তিনি কাজ শুরু করেছিলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, খালেদা জিয়ার ওপর জেল-জুলুম, নির্মম নির্যাতন হয়েছে, তার অধিকার লঙ্ঘন করা হয়েছে। আমি সমগ্র দেশবাসীর পক্ষ থেকে সরকারের এই নির্মম নির্যাতনের তীব্র ধিক্কার জানাই। বেগম খালেদা জিয়া সরকারের এই অন্যায় চাপ ও অগণতান্ত্রিক কাজের প্রতি মাথানত করেননি, আপস করেননি। বেগম খালেদা জিয়ার জনপ্রিয়তা, রাজনৈতিক ও সামাজিক শক্তিকে জনবিচ্ছিন্ন সরকার ভয় পাচ্ছে। এজন্য তার ওপর এত জুলুম নির্যাতন নেমে এসেছে। তিনি বাংলাদেশের মানুষের সাহসের বাতিঘর। স্বাধীনতার সার্বভৌমত্ব, গণতন্ত্রের ঐক্যের প্রতীক, আশা-ভরসার নির্ভরযোগ্য নেত্রী, তিনি মজলুম দেশনেত্রী। বেগম খালেদা জিয়া আমাদের প্রেরণার উৎস। চলমান গণ-আন্দোলন সফল করে তার লালিত স্বপ্ন গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে সব শ্রেণিপেশার মানুষের সম্মিলিত সংগ্রাম চলছে।

সবশেষে তিনি বলেন, এই সংগ্রাম সফলতার দিকে ধাবিত হচ্ছে। অগণতান্ত্রিক, গণবিরোধী সরকারের পতন ঘটিয়ে নির্দলীয়, নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনের মাধ্যমে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার লালিত স্বপ্ন গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার হবে। তাই, অবিলম্বে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করছি এবং তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারেও জোর দাবি জানাচ্ছি।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।