সরকা‌রি হাসপাতা‌লে প্রাই‌ভেট চেম্বার ফি হ‌বে ৩০০ টাকা – দৈনিক মুক্ত বাংলা
ঢাকাবুধবার , ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩
  1. অপরাধ
  2. অর্থনীতি-ব্যবসা
  3. আইন ও আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আরও
  6. ইসলাম ও ধর্ম
  7. কোভিট-১৯
  8. ক্যারিয়ার
  9. খেলা
  10. জেলার খবর
  11. তথ্যপ্রযুক্তি
  12. বিনোদন
  13. মি‌ডিয়া
  14. মু‌ক্তিযুদ্ধ
  15. যোগা‌যোগ

সরকা‌রি হাসপাতা‌লে প্রাই‌ভেট চেম্বার ফি হ‌বে ৩০০ টাকা

সম্পাদক
ফেব্রুয়ারি ২২, ২০২৩ ৫:২৭ অপরাহ্ণ
Link Copied!

আরিফ নেওয়াজ ::

সূত্র জানায়, কমিটি এখন পর্যন্ত দুটি বৈঠক করেছে। ‘প্রাইভেট চেম্বার’ কীভাবে চলবে, তা নিয়ে ‘ইনস্টিটিউশনাল প্র্যাকটিস’ নামের একটি খসড়া নীতিমালা ইতিমধ্যে তৈরি করেছে কমিটি। নীতিমালাটি চূড়ান্ত করতে আগামীকাল বৃহস্পতিবার কমিটির শেষ বৈঠক হবে। বৈঠকে নীতিমালা চূড়ান্ত করে তা মন্ত্রণালয়কে দেওয়া হবে।

কমিটির প্রধান সাইদুর রহমান সোমবার প্রথম আলোকে বলেন, ‘নীতিমালা চূড়ান্ত করতে আরেকটি বৈঠক ডাকা হয়েছে। আমরা আশা করছি, মার্চের মধ্যেই সরকারি হাসপাতালে প্রাইভেট প্র্যাকটিস চালু সম্ভব হবে।’

খসড়া নীতিমালায় বলা হয়েছে, অফিস সময়ের পর নিজ কর্মস্থলে চিকিৎসকেরা যে প্রাইভেট চেম্বার করবেন, তার সময় হবে বেলা তিনটা থেকে সন্ধ্যা ছয়টা। সেবা পেতে রোগীকে টিকিট কাটতে হবে।

কমিটি সূত্র জানায়, চেম্বারের সময় বেলা তিনটা থেকে সন্ধ্যা সাতটা পর্যন্ত করার পক্ষে কারও কারও মত ছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত বেলা তিনটা থেকে সন্ধ্যা ছয়টাই ঠিক হয়।

কমিটির এক সদস্য নাম প্রকাশ না করার শর্তে প্রথম আলোকে বলেন, নিজ হাসপাতালে সন্ধ্যা ছয়টা পর্যন্ত প্রাইভেট প্র্যাকটিসের পর কোনো চিকিৎসক যদি অন্য কোথাও গিয়ে রোগী দেখেন, সেটি তাঁর নিজস্ব বিষয়। চিকিৎসক চাইলে তা করতে পারবেন।

খসড়া নীতিমালা অনুযায়ী, জ্যেষ্ঠ চিকিৎসকের ফি হবে ৩০০ টাকা। কনিষ্ঠ চিকিৎসকের ফি ১৫০ টাকা। ফি থেকে জ্যেষ্ঠ চিকিৎসক পাবেন ২০০ টাকা। তাঁর সহায়তাকারী পাবেন ৫০ টাকা। বাকি ৫০ টাকা সরকারি তহবিলে জমা পড়বে। ফি থেকে কনিষ্ঠ চিকিৎসক পাবেন ১০০ টাকা। তাঁর সহায়তাকারী পাবেন ২৫ টাকা। বাকি ২৫ টাকা যাবে সরকারি তহবিলে। খসড়া নীতিমালায় জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে ফি রাখা হয়েছে ১৫০ টাকা। জেলা-উপজেলা পর্যায়ে যদি জ্যেষ্ঠ চিকিৎসক থাকেন, সে ক্ষেত্রে ফি একই থাকবে কি না, এমন প্রশ্নে কমিটির এক সদস্য এ‌বি‌সি টি‌ভি‌ওে মুক্ত বাংলা‌কে বলেন, ২৩ ফেব্রুয়ারির বৈঠকে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হবে।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সূত্র বলছে, প্রাথমিকভাবে উপজেলা পর্যায়ের ৫০টি, জেলা পর্যায়ে ২০টি, বিভাগীয় ৮টি ও বিশেষায়িত ৫টি সরকারি হাসপাতালে প্রাইভেট চেম্বার চালু হবে। উপজেলা ও জেলা পর্যায়ের হাসপাতাল ঠিক করা হবে রোগীর উপস্থিতির ওপর ভিত্তি করে। যেসব হাসপাতালে রোগী বেশি আসেন, সেখানে এ সেবা চালু করা হবে। আগামী আগস্টের মধ্যে দেশের সব সরকারি হাসপাতালে প্রাইভেট চেম্বার চালুর পরিকল্পনা করছে মন্ত্রণালয়।

প্রাইভেট চেম্বারে কী কী সেবা দেওয়া হবে, তা খসড়া নীতিমালায় উল্লেখ করা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, কনসালটেশন, ডায়াগনস্টিক, ল্যাবরেটরি, রেডিওলজি, ইমেজিং ও সার্জিক্যাল সেবা দেওয়া হবে।

খসড়া নীতিমালায় বলা হয়, চিকিৎসকেরা পালা করে রোগী দেখবেন। একজন অধ্যাপক সপ্তাহে দুই দিন, সহযোগী অধ্যাপক দুই দিন, সহকারী অধ্যাপক দুই দিন রোগী দেখবেন। চিকিৎসক যদি রোগীকে কোনো পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে দেন, রোগী চাইলে তা সরকারি হাসপাতালে করতে পারবেন। আবার বেসরকারি হাসপাতালেও করতে পারবেন।

গত ২২ জানুয়ারি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত এক বৈঠক শেষে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক সাংবাদিকদের বলেছিলেন, সরকারি হাসপাতালে অফিস সময়ের পর চেম্বার করতে পারবেন চিকিৎসকেরা। এখন তা কার্যকর হতে যাচ্ছে।

প্রতিবেশী দেশ ভারত ও পাকিস্তানে এ ধরনের সেবা (ইনস্টিটিউশনাল প্র্যাকটিস) চালু আছে বলে জানান স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা। বর্তমান সংসদ সদস্য ও চিকিৎসক অধ্যাপক প্রাণ গোপাল দত্ত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) উপাচার্য থাকাকালে হাসপাতালটিতে এ সেবা চালু করেন। সেখানে এখন বেলা তিনটা থেকে সন্ধ্যা ছয়টা পর্যন্ত অধ্যাপক ও সহযোগী অধ্যাপকেরা বহির্বিভাগে পালা করে রোগী দেখেন। রোগীপ্রতি ফি ২০০ টাকা। এর মধ্যে ১৩৫ টাকা পান চিকিৎসক। বাকি ৬৫ টাকা পান কর্মচারী। এ ব্যবস্থায় রোগীরা লাভবান হচ্ছেন।

চিকিৎসাসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জানান, বিএসএমএমইউর একজন চিকিৎসককে বাইরের চেম্বারে দেখাতে ফি দিতে হয় এক থেকে দেড় হাজার টাকা। সেখানে বিএসএমএমইউ হাসপাতালে প্রাইভেট চেম্বারে লাগছে ২০০ টাকা। এটা রোগীদের জন্য বেশ সাশ্রয়ী।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা এ‌বি‌সি চি‌ভি ও মুক্ত বাংলা‌কে বলেন, সরকারি হাসপাতালে প্রাইভেট প্র্যাকটিস চালু হলে জুনিয়র ও মধ্য পদে থাকা চিকিৎসকেরা বেশি খুশি হবেন। কারণ, ঢাকাসহ জেলা-উপজেলা পর্যায়ে যাঁরা ভালো চিকিৎসক হিসেবে ইতিমধ্যে পরিচিতি পেয়ে গেছেন, রোগীরা কেবল তাঁদের কাছেই যান। অন্য চিকিৎসকদের কাছে রোগী তেমন যান না। ফলে প্রাইভেট প্র্যাকটিস চালু হলে জুনিয়র ও মধ্য পদে থাকা চিকিৎসকদের কাছেও রোগী আসবেন।

নীতিমালার বিষয়ে জানতে চাইলে বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) মহাসচিব এহতেশামুল হক চৌধুরী এ‌বি‌সি টি‌ভি ও মুক্ত বাংলা‌কে বলেন, ‘সরকারি হাসপাতালে প্রাইভেট প্র্যাকটিস চালুর সুবিধা যেমন আছে, তেমনি অসুবিধাও আছে। এটি বাস্তবায়ন করতে হলে সবাইকে আস্থায় নিতে হবে। হুট করে কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া সমীচীন হবে না।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।