খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা আগের মতোই – দৈনিক মুক্ত বাংলা
ঢাকাসোমবার , ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৩
  1. অপরাধ
  2. অর্থনীতি-ব্যবসা
  3. আইন ও আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আরও
  6. ইসলাম ও ধর্ম
  7. কোভিট-১৯
  8. ক্যারিয়ার
  9. খেলা
  10. জেলার খবর
  11. তথ্যপ্রযুক্তি
  12. বিনোদন
  13. মি‌ডিয়া
  14. মু‌ক্তিযুদ্ধ
  15. যোগা‌যোগ

খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা আগের মতোই

সম্পাদক
ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০২৩ ৯:৫১ অপরাহ্ণ
Link Copied!

নিজস্ব প্রতিবেদক ::

বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা আগের মতোই আছে। অবস্থার তেমন কোনো পরিবর্তন হয়নি বলে জানিয়েছেন তার ব্যক্তিগত চিকিৎসক অধ্যাপক এ জেড এম জাহিদ হোসেন। আজ সোমবার খালেদা জিয়ার গুলশানের বাসভবন ‘ফিরোজা’র গেটের সামনে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান তিনি।

এদিন বিকালে নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাতে এভারকেয়ার হাসপাতালে নেয়া হয় খালেদা জিয়াকে। পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে রাত ৮টার দিকে বাসায় ফেরেন তিনি। এ সময় ফিরোজার সামনে এ জেড এম জাহিদ হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্যে মেডিকেল বোর্ডের চিকিৎসকদের পরামর্শক্রমে এভারকেয়ার হাসপাতালে গিয়েছিলেন তিনি। সেখানে বিভিন্ন ধরনের পরীক্ষা করা হয়েছে। ওই পরীক্ষার রিপোর্ট কাল নাগাদ পাওয়া যেতে পারে। তারপর চিকিৎসকরা বসে ম্যাডামের চিকিৎসা বিষয়ে প্রয়োজনীয় সিদ্ধান্ত নেবেন।

৭৭ বছর বয়সী সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী বহু বছর ধরে আর্থ্রাইটিস, ডায়াবেটিস, কিডনি, হৃদপিণ্ডের জটিলতা, ফুসফুস, চোখ ও দাঁতের নানা সমস্যায় ভুগছেন।

তিনি এভারকেয়ার হাসপাতালের হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক শাহাবুদ্দিন তালুকদারের নেতৃত্বে একটি মেডিকেল বোর্ডের অধীনে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। ২০২১ সালের এপ্রিলে গুলশানের বাসা ‘ফিরোজায়’ কোভিডে আক্রান্ত হওয়ার পর তাকে ৬ বার এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিতে হয়েছে। গত বছরে এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পর তার পরিপাকতন্ত্রে রক্তক্ষরণ ও লিভার সিরোসিসে আক্রান্ত হওয়ার কথা জানিয়েছিলেন মেডিকেল বোর্ডের চিকিৎসকরা।

সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবে এক আলোচনা সভায় খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে জানান মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, তিনি অত্যন্ত অসুস্থ। আজকেও (সোমবার) তিনি যাবেন হাসপাতালে। তার স্বাস্থ্য পরীক্ষা নিরীক্ষা করার জন্য। তাকে নিয়ে বিভিন্নভাবে নাটক শুরু করেছে সরকার।

এর আগে, ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট এবং পরে চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় দণ্ড হওয়ার দুই বছর পর ‘সাময়িক মুক্তি’ পান। এই সাময়িক মুক্তির মেয়াদ ছিল ছয় মাস। পরে ষষ্ঠবারের মতো বাড়ানো হয় মেয়াদ। আগামী ২৫ মার্চ শেষ হচ্ছে তা। এই তিন বছরে বিএনপি নেত্রীকে একাধিকবার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এর মধ্যে ২০২১ সালের ১৩ নভেম্বর ভর্তি হওয়ার পর টানা ৮১ দিন তিনি সেখানে থাকেন। বাসায় ফেরেন ১ ফেব্রুয়ারি। সাময়িক মুক্তির শর্তের মধ্যে একটি ছিল বেগম খালেদা জিয়া দেশের বাইরে যাবেন না। তবে এই তিন মাসে বিএনপি তাকে বিদেশে যেতে দেয়ার দাবিতে রাজপথে কর্মসূচিও পালন করেছে। তবে সরকার অনুমতি দেয়নি। গত বছরের ১১ জুন বিএনপি নেত্রীকে আবার এভারকেয়ার হাসপাতাল নেওয়া হয়। তখন তার হৃদপিণ্ডের ব্লক অপসারণ করে একটি স্টেন্ট বসানো হয়।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।