চালু হ‌লো মে‌ট্রো রে‌লের মিরপুর ১০ ষ্টেশন – দৈনিক মুক্ত বাংলা
ঢাকাবুধবার , ১ মার্চ ২০২৩
  1. অপরাধ
  2. অর্থনীতি-ব্যবসা
  3. আইন ও আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আরও
  6. ইসলাম ও ধর্ম
  7. কোভিট-১৯
  8. ক্যারিয়ার
  9. খেলা
  10. জেলার খবর
  11. তথ্যপ্রযুক্তি
  12. বিনোদন
  13. মি‌ডিয়া
  14. মু‌ক্তিযুদ্ধ
  15. যোগা‌যোগ
 
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চালু হ‌লো মে‌ট্রো রে‌লের মিরপুর ১০ ষ্টেশন

সম্পাদক
মার্চ ১, ২০২৩ ১:০২ অপরাহ্ণ
Link Copied!

অন্যদিকে ট্রেনের টিকিট কাটার যন্ত্রেও ভাংতি টাকা ছিল না। স্কাউটসের সদস্যরা যাত্রীদের যন্ত্রে ভাংতি টাকা দিয়ে টিকিট কাটতে বলছিলেন। এ নিয়ে একজন স্কাউট সদস্য বলেন, আজ প্রথম দিন। টিকিট বিক্রয় যন্ত্রে ভাংতি টাকা নেই। আজ যাত্রীদের কাছ থেকে ভাংতি টাকা নেওয়া হচ্ছে। পরের দিন থেকে আর ভাংতির সমস্যা হবে না।

উত্তরা থেকে আগারগাঁও অংশের স্টেশনগুলো চালু হওয়ায় ট্রেনের যাত্রী বাড়তে শুরু করেছে বলে মেট্রোস্টেশনের আনসার, রোভার স্কাউটসের সদস্যরা জানিয়েছেন। সরেজমিন ট্রেনে যাত্রীদের উপস্থিতি ভালোই দেখা গেছে। ট্রেনের কোচগুলোর ভেতরে বসার আসন ছিল পরিপূর্ণ। যাত্রীদের বেশির ভাগই ছিলেন কর্মস্থলে যাতায়াতকারী ব্যক্তিরা। ট্রেনের ভেতরে অনেক নারী যাত্রী দেখা গেছে। তবে শিক্ষার্থীদের অনেকে মেট্রোরেলে ভ্রমণের অভিজ্ঞতা নিতে ট্রেনে চড়ে ভ্রমণ করছিলেন।

পল্লবী স্টেশন চালু হওয়ার পর থেকেই মেট্রোরেলে নিয়মিত উত্তরায় কমর্স্থলে যাতায়াত করছেন মিরপুর-১২ নম্বরের বাসিন্দা আফজাল করিম। তাঁর কর্মস্থল উত্তরা ১৪ নম্বর সেক্টরে। তিনি বলেন, ‘এখন ঘড়ির কাটা ধরে বাসা থেকে বের হই। সময়মতো অফিসে পৌঁছে যাই। মেট্রোরেল চালুর পর থেকে বাসে চড়ার কথা চিন্তাই করতে পারি না। যেদিন (মঙ্গলবার) সাপ্তাহিক বন্ধ, সেদিন মেট্রোর নিচ দিয়ে তৈরি রাস্তায় রিকশায় মিরপুর থেকে অফিসে চলে যাই।’

উত্তরা উত্তর স্টেশন থেকে ফেরার সময় স্টেশনটিতে ট্রেনের জন্য অপেক্ষমাণ মানুষের ভিড় দেখা গেছে। অনেকে উত্তরা, টঙ্গী, আবদুল্লাহপুর থেকে মেট্রোস্টেশনে গিয়ে আগারগাঁওয়ে থাকা বিভিন্ন সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসক দেখাতে যাচ্ছিলেন।

তাঁদের একজন তৈরি পোশাক কারখানার কর্মী মো. আসিফ। তিনি স্ত্রী শারমীন আক্তার ও চার মাসের ছেলেসন্তান সোহানকে সঙ্গে নিয়ে নিউরোসায়েন্স হাসপাতালে যাচ্ছিলেন। আরিফ টঙ্গী মিলগেট এলাকায় থাকেন। তিনি সেখান থেকে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশায় প্রথমে কামারপাড়া মোড়ে যান। সেখান থেকে আবার সিএনজিচালিত রিকশায় উত্তরা উত্তর স্টেশনে যান। পরে আগারগাঁওয়ের দুটি টিকিট করেন।

আসিফ এ‌বি‌সি টি‌ভি ও মুক্ত বাংলা‌কে বলেন, ‘গত দুই মাসে তিনবার ডাক্তার দেখাতে গিয়েছি। প্রতিবারই মেট্রোরেলে গেছি। বাসে টঙ্গী থেকে আগারগাঁও যাতায়াত অনেক কষ্টের ছিল। আর সিএনজিতে ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা লাগত। এখন ট্রেনে আরামে যেতে পারছি।’

উত্তরা উত্তর থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত অংশে এখন পর্যন্ত মাঝের তিনটি স্টেশন চালু হয়েছে। এর মধ্যে উদ্বোধনের পর গত ২৫ জানুয়ারি পল্লবী স্টেশন, ১৮ ফেব্রুয়ারি উত্তরা সেন্টার স্টেশন এবং সবশেষ মিরপুর-১০ স্টেশন আজ চালু করা হলো। এ ছাড়া চলতি মার্চের মধ্যেই উত্তরা-আগারগাঁও অংশে থাকা বাকি স্টেশনগুলো অর্থাৎ পুরো ৯টি স্টেশনই চালু করা হবে বলে জানা গেছে।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।