অনিয়ম দূর্নীতির আখড়া ! অসাধু প্রকৌশলী-ঠিকাদার চক্রের হাতে জিম্মি সিভিল এভিয়েশন – দৈনিক মুক্ত বাংলা
ঢাকাসোমবার , ৬ মার্চ ২০২৩
  1. অপরাধ
  2. অর্থনীতি-ব্যবসা
  3. আইন ও আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আরও
  6. ইসলাম ও ধর্ম
  7. কোভিট-১৯
  8. ক্যারিয়ার
  9. খেলা
  10. জেলার খবর
  11. তথ্যপ্রযুক্তি
  12. বিনোদন
  13. মি‌ডিয়া
  14. মু‌ক্তিযুদ্ধ
  15. যোগা‌যোগ

অনিয়ম দূর্নীতির আখড়া ! অসাধু প্রকৌশলী-ঠিকাদার চক্রের হাতে জিম্মি সিভিল এভিয়েশন

সম্পাদক
মার্চ ৬, ২০২৩ ৩:৩১ অপরাহ্ণ
Link Copied!

স্টাফ রিপোর্টার :

তুঘলকি কান্ড চলছে সিভিল এভিয়েশনে। আর এই অনিয়ম স্বেচ্ছাচারীতার পেছনে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে একটি দূর্নীতিবাজ কর্মকর্তা ও ঠিকাদার চক্র। সবই চলছে সিভিল এভিয়েশন উন্নয়নের ৩৫ হাজার কোটি টাকার একটি বড় অংশ তছরুপের টার্গেট করে। এর নেতৃত্বে রয়েছে সিভিল এভিয়েশন এর তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আমিনুল হাসিব। কি নাই তার ঝুলিতে অবৈধ ভাবে টেন্ডার পাইয়ে দিতে অনৈতিকতার আশ্রয় নিয়ে সহযোগিতা করা । সাথে সিনিয়রদের সুপারর্সিড করে নিজে তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলীর দ্বায়িত্ব করায়ত্ব করা। চাইলেই নিজ চক্রের বায়রের সাধারণ ঠিকাদারদের নানান ভাবে হয়রানি করা এবং নিজ চক্রের কর্মচারী এবং ঠিকাদারদের দিয়ে সন্ত্রাসী ভাড়া করে প্রতিবাদকারীদের হুমকী, মামলা মকদ্দমা দেওয়া এখন তার নিত্য দিনের কাজ। এ ছাড়াও চলছে নানা অনিয়ম, দুর্নীতি ও লুটপাটের মহা আয়োজন।
সংস্থাটির প্রকৌশল বিভাগের কয়েকজন প্রকৌশলীর কাছে জিম্মি পুরো প্রতিষ্ঠান। টাকা ছাড়া ফাইল নড়ে না। ঠিকাদারদের অভিযোগ, টাকা ছাড়া কোন কাজের ইস্টিমিট পাওয়া যায় না। কাজ পেলেও টাকা না দিলে ফাইল আটকা পড়ে থাকে। অভিযোগকারীরা বলছেন, কয়েকজন প্রকৌশলী ও কিছু ঠিকাদার সিন্ডিকেট করে প্রতি বছর শত শত কোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। এ সিন্ডিকেটের নেতৃত্বে রয়েছেন তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আমিনুল হাসিব। এ সিন্ডিকেটের কারণে দক্ষ মেধাবী অভিজ্ঞতাসম্পন্ন প্রকৌশলীদের নানা অজুহাতে সরিয়ে দিয়ে দুর্নীতিবাজ অসাধু প্রকৌশলীরা ভাগিয়ে নিচ্ছে গুরুত্বপূর্ণ পদগুলো। আর পছন্দের ঠিকাদারদের শত শত কোটি টাকার কাজ দিয়ে তারা হাতিয়ে নিচ্ছেন কোটি কোটি টাকা। কতিপয় প্রভাবশালী ঠিকাদারদের অবৈধ অন্যায় আবদার না রাখায় সিভিল এভিয়েশনের প্রকৌশলী বিভাগের যোগসাজশে নানা কৌশলে মেধাবী অভিজ্ঞতাসম্পন্ন প্রকৌশলীদের মামলায় জড়িয়ে হয়রানির অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগগুলোর সততা প্রশ্নে তার পক্ষে বিপক্ষে ব্যাখ্যা পেতে আমাদের প্রতিনিধি একাধিকবার সিভিল এভিয়েশনে যান। কিন্তু তাকে অফিসে পাওয়া যায়নি। একটি সূত্র নিশ্চিত করে তিনি অফিসের বায়রে অফিস করেন নানান জায়গায়। যার করাণ হিসেবে জানা গেছে, তিনি কোন ভাবে জেনেছেন তার দূর্নীতি অনিয়মের খতিয়ান এখন মুক্ত বাংলার হাতে। তাই সামনা সামনি হতে চাইছেন না এমনটা জানিয়েছে তার একজন অফিস সহকারী। অন্যদিকে তার মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন করলেও অফিসিয়াল নম্বরটি বন্ধ পাওয়া গেছে। তার সাথে আমাদের জোড় চেষ্টা অব্যহত রয়েছে। পরের কোন পর্বে তার বক্তব্য হয়ত পাওয়া সম্ভব হবে।
( আসছে পরের পর্বে বিস্তারিত )

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।