গাড়ি নেই, তবে দেড় বছর ধরে জ্বালানি খরচ কোটি টাকা – দৈনিক মুক্ত বাংলা
ঢাকাশুক্রবার , ১০ মার্চ ২০২৩
  1. অপরাধ
  2. অর্থনীতি-ব্যবসা
  3. আইন ও আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আরও
  6. ইসলাম ও ধর্ম
  7. কোভিট-১৯
  8. ক্যারিয়ার
  9. খেলা
  10. জেলার খবর
  11. তথ্যপ্রযুক্তি
  12. বিনোদন
  13. মি‌ডিয়া
  14. মু‌ক্তিযুদ্ধ
  15. যোগা‌যোগ
 
আজকের সর্বশেষ সবখবর

গাড়ি নেই, তবে দেড় বছর ধরে জ্বালানি খরচ কোটি টাকা

সম্পাদক
মার্চ ১০, ২০২৩ ২:০৭ অপরাহ্ণ
Link Copied!

এ ঘটনার পাশাপাশি আবু সাঈদ আরেকটি গাড়ি ভাড়াও নিয়েছেন। অঞ্চল-৩–এর উপপ্রধান রাজস্ব কর্মকর্তার জন্য গাড়িটি রেন্ট-এ–কার থেকে ভাড়া নেওয়া হয়। সাঈদের ব্যবহার করা সেই গাড়ির ভাড়া বাবদ প্রতি মাসে প্রায় ৮৭ হাজার টাকা পরিশোধ করেছে ওয়াসা কর্তৃপক্ষ। অর্থাৎ বরাদ্দহীন একটি গাড়ির জ্বালানি খরচ গ্রহণ ও ব্যবহারকৃত একটি গাড়ির ভাড়া তুলেছেন তিনি।

* ২০২১ সালের আগস্ট থেকে গাড়ি ব্যবহার বাবদ প্রতি মাসে জ্বালানির জন্য ১৫ হাজার টাকা নেওয়া শুরু করেন তিনি। * গত বছরের শেষ দিকে এসে বিষয়টি ধরা পড়ে। এ ঘটনায় তাঁর বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক কোনো পদক্ষেপ নেয়নি ওয়াসা কর্তৃপক্ষ।

জানতে চাইলে আবু সাঈদ এবিসি টেলিভিশন ও দৈনিক মুক্ত বাংলাকে বলেন, ‘এ বিষয়ে আমার মিডিয়াকে দেওয়ার মতো কোনো বক্তব্য নেই। যা বলার ওয়াসা কর্তৃপক্ষকে বলেছি। জনসংযোগ বিভাগ থেকে বক্তব্য জেনে নিন।’

গত ১৫ ফেব্রুয়ারি গণমাধ্যমের সঙ্গে তথ্য বিনিময়ের জন্য ১৪ সদস্যের একটি মিডিয়া সেল গঠন করেছে ঢাকা ওয়াসা। এই সেলে বিভিন্ন বিভাগের কর্মকর্তারা রয়েছেন। সেলে উপপ্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা সাঈদকেও রাখা হয়েছে। এই সেলের আহ্বায়ক সংস্থাটির উপব্যবস্থাপনা পরিচালক (পরিচালন ও রক্ষণাবেক্ষণ)।

আবু সাঈদের বিরুদ্ধে বেশ কিছু অভিযোগ জানিয়ে গত বছরের ১৫ সেপ্টেম্বর ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালকের কাছে চিঠি দেন সংস্থাটির রাজস্ব অঞ্চল-৩–এর কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। এর মধ্যে এলাকা বণ্টনের জন্য বিলিং সহকারীদের কাছ থেকে তিন–চার লাখ টাকা করে ঘুষ নেওয়ার অভিযোগও আছে। অভিযোগ আছে, সাঈদ সেবা নিতে আসা গ্রাহকদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার ও অধীনস্থ কর্মীদের গালাগাল করেন। দাবি জানানো হয়—সাঈদের কক্ষে সিসিটিভি ক্যামেরা লাগানোর।

জ্বালানি খরচ নেওয়ার বিষয়ে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেলে যথাযথ আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আর সাঈদের বিরুদ্ধে আগের অভিযোগটিতে কোনো ব্যক্তির স্বাক্ষর ছিল না। তাই আমলে নেওয়া যায়নি।

এসব অভিযোগের বিষয়েও কোনো ব্যবস্থা নেয়নি ঢাকা ওয়াসা। জানতে চাইলে সংস্থার উপপ্রধান জনতথ্য কর্মকর্তা এ এম মোস্তফা তারেক এবিসি টেলিভিশন ও দৈনিক মুক্ত বাংলাকে বলেন, ‘জ্বালানি খরচ নেওয়ার বিষয়ে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেলে যথাযথ আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আর সাঈদের বিরুদ্ধে আগের অভিযোগটিতে কোনো ব্যক্তির স্বাক্ষর ছিল না। তাই আমলে নেওয়া যায়নি।’

যে গাড়ির বিপরীতে আবু সাঈদ জ্বালানির টাকা নিয়েছেন, সেটি ২০২২ সালের ২৫ মে এক অফিস আদেশে অঞ্চল-৮–এর উপপ্রধান রাজস্ব কর্মকর্তাকে বরাদ্দ দেওয়া হয়। উপপ্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা জাকির হোসেন প্রধানীয়া গাড়িটি ব্যবহার করছেন। নিয়মিত পরিচালন খরচও পেয়েছেন। সাঈদের বিরুদ্ধে এই গাড়ি বাবদ জ্বালানি খরচ নেওয়ার বিষয়ে জাকির হোসেনের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি সাড়া দেননি।

জ্বালানি সুবিধা আরও বেড়েছে

ডিজেল ও অকটেনের দাম বাড়ায় গত ২৭ ডিসেম্বর ওয়াসার কর্মকর্তাদের দাপ্তরিক কাজে ব্যবহৃত গাড়ির মাসিক জ্বালানি ভাতা পুনর্নির্ধারণ করা হয়। নতুন ভাতা অনুযায়ী, জিপ গাড়ির জন্য একজন কর্মকর্তা মাসে ২৫০ লিটার ডিজেল বা ২৭ হাজার ২৫০ টাকা পাচ্ছেন। আগে ছিল ২২ হাজার টাকা। ডাবল কেবিন পিকআপের জন্য পাচ্ছেন ২০০ লিটার বা ২১ হাজার ৮০০ টাকা। আগে যা ছিল ১৮ হাজার টাকা। আর অকটেনচালিত গাড়ির জন্য ১৫০ লিটার অকটেন বা ১৯ হাজার ৫০০ টাকা পাচ্ছেন। এ ছাড়া সিএনজিচালিত গাড়ির জন্য ১৫ হাজার টাকা জ্বালানি খরচ ধরা হয়েছে।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।