অ‌ভিনেত্রী ‌রো‌জি আফসারী – দৈনিক মুক্ত বাংলা
ঢাকারবিবার , ১২ মার্চ ২০২৩
  1. অপরাধ
  2. অর্থনীতি-ব্যবসা
  3. আইন ও আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আরও
  6. ইসলাম ও ধর্ম
  7. কোভিট-১৯
  8. ক্যারিয়ার
  9. খেলা
  10. জেলার খবর
  11. তথ্যপ্রযুক্তি
  12. বিনোদন
  13. মি‌ডিয়া
  14. মু‌ক্তিযুদ্ধ
  15. যোগা‌যোগ

অ‌ভিনেত্রী ‌রো‌জি আফসারী

সম্পাদক
মার্চ ১২, ২০২৩ ৫:৪০ অপরাহ্ণ
Link Copied!

নিহাদ নি‌শির :;

রোজী আফসারী পুরো নাম শামীমা আক্তার রোজী।
জন্ম: ২৩ এপ্রিল ১৯৪৬ লক্ষ্মীপুর জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। মৃত্যু: ৯ মার্চ ২০০৭ যিনি রোজী সামাদ নামেও পরিচিত ছি‌লেন ; চলচ্চিত্র অভিনেত্রী । তিনি ১৯৬৪ সালে এইতো জীবন চলচ্চিত্রের মাধ্যমে অভিনয় শুরু করেন। তিনি লাঠিয়াল (১৯৭৫) চলচ্চিত্রে অভিনয় করে শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রী বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেন। তিনিই এই বিভাগের প্রথম বিজেতা। তার অভিনীত অন্যান্য উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্রসমূহ হল জীবন থেকে নেয়া (১৯৭০), তিতাস একটি নদীর নাম (১৯৭৩), সূর্য সংগ্রাম (১৯৭৪), সূর্য গ্রহণ (১৯৭৬), অশিক্ষিত (১৯৭৮), গোলাপী এখন ট্রেনে (১৯৭৮), ও এই ঘর এই সংসার (১৯৯৬)। ১৯৮৬ সালে আশা নিরাশা চলচ্চিত্র দিয়ে পরিচালক হিসেবে তার অভিষেক হয়। ২০০৫ সালে তার সর্বশেষ চলচ্চিত্র মুক্তি পায়।

রোজীর চলচ্চিত্র কর্মজীবন শুরু হয় ১৯৬৪ সালে জিল্লুর রহিম পরিচালিত এইতো জীবন চলচ্চিত্রের মধ্য দিয়ে। একই বছর তিনি জহির রায়হানের পরিচালনায় তৎকালীন পাকিস্তানে নির্মিত প্রথম রঙিন পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র সংগম-এ একটি প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেন।[১] পরের দুই বছরে তিনি একালের রূপকথা (১৯৬৫) ও রাজা সন্ন্যাসী (১৯৬৬) চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। ১৯৬০-এর দশকের শেষভাগে তিনি এতটুকু আশা (১৯৬৮), চোরাবালি (১৯৬৮), চেনা অচেনা (১৯৬৮), রাখাল বন্ধু (১৯৬৮), প্রতিকার (১৯৬৯), বেদের মেয়ে (১৯৬৯), আলোর পিপাসা (১৯৬৯), নীল আকাশের নীচে (১৯৬৯), ও জোয়ার ভাটা (১৯৬৯) চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন।

১৯৭০-এর দশকে জীবন থেকে নেয়া, তিতাস একটি নদীর নাম, সূর্যগ্রহণ, ও সূর্য সংগ্রাম চলচ্চিত্রে তার অভিনয় ব্যাপক দর্শক নন্দিত হয়। ১৯৭৪ সালে নারায়ণ ঘোষ মিতা পরিচালিত আলোর মিছিল চলচ্চিত্রে অভিনয় করে। ১৯৭৫ সালে লাঠিয়াল চলচ্চিত্রে নাম চরিত্রের স্ত্রী চরিত্রে অভিনয় করে শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রী বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেন। অশিক্ষিত ইত্যাদি। তার সর্বশেষ অভিনীত ছবি ‘পরম প্রিয়’ ২০০৫ সালে মুক্তি পেয়েছিল।

রোজী ১৯৮৫ সালে চলচ্চিত্র নির্মাতা মালেক আফসারীর সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। ২০০৭ সালের ৯ মার্চ কিডনিজনিত রোগে ৫৭ বছর বয়সে রোজী মৃত্যুবরণ করেন।
পুরস্কার ও সম্মাননা ১৯৭৪: শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রী বিভাগে বাচসাস পুরস্কার – আলোর মিছিল
১৯৭৫: শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রী বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার – লাঠিয়াল ২০১৯: অনুসন্ধান ইঞ্জিন গুগল তার ৭৩তম জন্মদিনে (২৩ এপ্রিল) তাকে নিয়ে ডুডল প্রদর্শন করে।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।