গাজীপুর সি‌টি কর‌পো‌রেশনে নৌকা‌কে হা‌রি‌য়ে জা‌য়েদা খাতু‌নের জয় – দৈনিক মুক্ত বাংলা
ঢাকাশুক্রবার , ২৬ মে ২০২৩
  1. অপরাধ
  2. অর্থনীতি-ব্যবসা
  3. আইন ও আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আরও
  6. ইসলাম ও ধর্ম
  7. কোভিট-১৯
  8. ক্যারিয়ার
  9. খেলা
  10. জেলার খবর
  11. তথ্যপ্রযুক্তি
  12. বিনোদন
  13. মি‌ডিয়া
  14. মু‌ক্তিযুদ্ধ
  15. যোগা‌যোগ

গাজীপুর সি‌টি কর‌পো‌রেশনে নৌকা‌কে হা‌রি‌য়ে জা‌য়েদা খাতু‌নের জয়

সম্পাদক
মে ২৬, ২০২৩ ২:৫৩ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

আ‌রিফ নি‌শির  ::

গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আজমত উল্লাকে হারিয়ে বিজয়ী হয়েছেন সাবেক মেয়র জাহাঙ্গীর আলমের মা জায়েদা খাতুন। ৪৮০ কেন্দ্রের সবকটির বেসরকারি ফলাফলে তিনি বিজয়ী হয়েছেন।

আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত নেতা জাহাঙ্গীরের মা স্বতন্ত্র প্রার্থী জায়েদা খাতুন টেবিলঘড়ি প্রতীকে পেয়েছেন ২ লাখ ৩৮ হাজার ৯৩৪ ভোট। আর নৌকা প্রতীকের মেয়র পদপ্রার্থী আজমত উল্লা খান পেয়েছেন ২ লাখ ২২ হাজার ৭৩৭। জায়েদা খাতুন জিতেছেন ১৬ হাজার ১৯৭ ভোটের ব্যবধানে।

এছাড়া তৃতীয় স্থানে থাকা ইসলামী আন্দোলনের গাজী আতাউর রহমান হাতপাখা প্রতীকে পেয়েছেন ৪৫ হাজার ৩৫২ ভোট। স্বতন্ত্র প্রার্থী সরকার শাহনূর ইসলাম রনি (রনি সরকার) হাতি প্রতীকে পেয়েছেন ২৩ হাজার ২৬৫ ভোট।

বৃহস্পতিবার (২৫ মে) দিবাগত রাতে গাজীপুর জেলা পরিষদ ভবনের বঙ্গতাজ মিলনায়তনে  নির্বাচনের ‘ফলাফল সংগ্রহ ও পরিবেশন কেন্দ্র’ থেকে রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. ফরিদুল ইসলাম ফল ঘোষণা করেন।এর আগে দিনভর গাজীপুর সিটি করপোরেশনের (জিসিসি) ভোট শেষ হয়েছে শান্তিপূর্ণভাবেই। সকাল ৮টায় গাজীপুর সিটির ৪৮০টি কেন্দ্রে ইভিএমে ভোটগ্রহণ শুরু হয়, যা একটানা চলে বিকাল ৪টা পর্যন্ত।

বিকাল ৪টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণের কথা থাকলেও কেন্দ্রে ভোটার উপস্থিতি বেশি থাকায় কোথাও কোথাও সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্তও ভোট হয়। এ বিষয়ে নির্বাচন কমিশনার মো. আলমগীর বলেন, ‘ভোটগ্রহণ ৪টায় শেষ হলেও কেন্দ্রে যেসব ভোটার উপস্থিত ছিলেন তাদের সবার ভোটগ্রহণ শেষ হওয়া পর্যন্ত বন্ধ করা যায় না। এটা নির্বাচন কমিশনের আইন।’ এ নির্বাচনে কত ভোট পড়েছে-এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘৫০ শতাংশের কম না।’

রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন কমিশন ভবনে সিসি টিভির মাধ্যমে ভোট পর্যবেক্ষণ করেন চার নির্বাচন কমিশনার। এদিন সিসি টিভি দেখে নির্বাচন কমিশনাররা নির্দেশ দেয়ার পর দুটি কেন্দ্র থেকে দুইজনকে আটক করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে ভোটের গোপন কক্ষে প্রবেশ করে ভোটারদের বিভ্রান্ত করার অভিযোগ আনা হয়। এর মধ্যে দুপুর ১২টার কিছু পরে ১০০ নম্বর কেন্দ্রের ৩ নম্বর বুথে একজন লোককে বসে থাকতে দেখেন নির্বাচন কমিশনার রাশেদা সুলতানা। তাৎক্ষণিক তিনি মুঠোফোনে আগন্তুককে গ্রেফতারের নির্দেশ দেন। এ বিষয়ে রাশেদা সুলতানা কেন্দ্রের দায়িত্বশীল প্রিজাইডিং কর্মকর্তাকে বলেন, ‘১০০ নম্বর কেন্দ্রের ৩ নম্বর বুথে পাঞ্জাবি পরা একজন লোক বসে আছেন। তিনি কারও কথা শুনছেন না। তিনি বেরও হচ্ছেন না। ভোটারদের জোর করে ভোট দেয়াচ্ছেন। তার কারণে ভোটগ্রহণে সমস্যা হচ্ছে। দ্রুত অ্যাকশনে যান, প্রয়োজনে তাকে গ্রেপ্তার করুন।’

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।