বনানীতে ১৪ তলার চু‌ক্তি‌তে ২৮ তলা ভবন নির্মাণ : সিটি করপোরেশনের হিস্যা বুঝে নিতে নি‌র্দেশ দি‌লো হাইকোর্ট – দৈনিক মুক্ত বাংলা
ঢাকাসোমবার , ১২ জুন ২০২৩
  1. অপরাধ
  2. অর্থনীতি-ব্যবসা
  3. আইন ও আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আরও
  6. ইসলাম ও ধর্ম
  7. কোভিট-১৯
  8. ক্যারিয়ার
  9. খেলা
  10. জেলার খবর
  11. তথ্যপ্রযুক্তি
  12. বিনোদন
  13. মি‌ডিয়া
  14. মু‌ক্তিযুদ্ধ
  15. যোগা‌যোগ

বনানীতে ১৪ তলার চু‌ক্তি‌তে ২৮ তলা ভবন নির্মাণ : সিটি করপোরেশনের হিস্যা বুঝে নিতে নি‌র্দেশ দি‌লো হাইকোর্ট

সম্পাদক
জুন ১২, ২০২৩ ১১:৫৯ অপরাহ্ণ
Link Copied!

রাজধানীর বনানীতে নির্মিত একটি বহুতল ভবনে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের হিস্যাসহ বকেয়া সুবিধাদি বুঝে নেওয়ার বিষয়টি জানিয়ে তিন মাসের মধ্যে হাইকোর্টে প্রতিবেদন দিতে হবে। একইসঙ্গে সেখানে সিটি করপোরেশনের হিস্যা ও সুবিধাদি নিয়ে ওঠা ‘ইস্যুগুলো’ দুই মাসের মধ্যে মীমাংসা করতে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। সিটি করপোরেশনের জায়গায় ওই বহুতল ভবন নির্মাণ করেছে বোরাক রিয়েল এস্টেট প্রাইভেট লিমিটেড।

একটি রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি খিজির হায়াতের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ আজ সোমবার রুলসহ এ আদেশ দেন।

বনানীতে সিটি করপোরেশনের জায়গায় ১৪ তলা ভবন নির্মাণের জন্য সিটি করপোরেশন ও বোরাক রিয়েল এস্টেট প্রাইভেট লিমিটেডের মধ্যে চুক্তিতে অনিয়মের অভিযোগ তুলে অনুসন্ধানের নির্দেশনা চেয়ে গতকাল রোববার ওই রিটটি করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন।

‘সরকারি জমিতে পাঁচ তারকা হোটেল’ শিরোনামে ১ জুন প্রথম আলোতে একটি প্রতিবেদন ছাপা হয়। এই প্রতিবেদনের প্রসঙ্গ তুলে ধরে বনানীতে বহুতল ভবন নির্মাণের জন্য উত্তর সিটি করপোরেশন ও বোরাক রিয়েল এস্টেট প্রাইভেট লিমিটেডের মধ্যে চুক্তিতে দুর্নীতির অভিযোগ অনুসন্ধান করে জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ জানিয়ে দুদক চেয়ারম্যান বরাবর ৪ জুন আবেদন দেন সৈয়দ সায়েদুল হক। দুদকে আবেদন করার পর দৃশ্যমান কোনো পদক্ষেপ না দেখে গতকাল রিটটি করেন তিনি।

আদালতে রিটের পক্ষে আইনজীবী সৈয়দ সায়েদুল হক নিজেই শুনানি করেন, সঙ্গে ছিলেন আইনজীবী লিটন আহমেদ। দুদকের পক্ষে জ্যেষ্ঠ আইনজীবী খুরশীদ আলম খান এবং রাষ্ট্রপক্ষে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সাইফুদ্দিন খালেদ শুনানি করেন। বোরাকের পক্ষে আইনজীবী আলী শিকদার ও উত্তর সিটি করপোরেশনের পক্ষে আইনজীবী ইমতিয়াজ মঈনুল ইসলাম শুনানি করেন।

শুনানিতে দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান বলেন, রিটে মানুষের স্বার্থ রক্ষায় বৃহৎ পরিসরে অনুসন্ধানের নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে। দুদকের তফসিলভুক্ত অপরাধের বাইরে গিয়ে তথা নিজস্ব এখতিয়ারের বাইরে গিয়ে কাজ করার আইনি ক্ষমতা দুদকের নেই।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সাইফুদ্দিন খালেদ শুনানিতে বলেন, এ–সংক্রান্ত বিষয়ে ২০১৫ সালে দুদক অনুসন্ধান করে, যা নথিভুক্ত করে রাখা হয়েছে। একটি বিষয় নিয়ে একবার অনুসন্ধান হয়ে যাওয়ার পর আবার অনুসন্ধানের প্রয়োজন আছে কি না? ২০০৬ সালে চুক্তির পর এখন ২০২৩ সাল। এ পর্যন্ত মন্ত্রণালয়, সিটি করপোরেশন ও বোরাক কর্তৃপক্ষ—তাদের মধ্যে সময়ে সময়ে যোগাযোগ হয়েছে। এতে প্রত্যেকে প্রত্যেকের নিজ নিজ স্বার্থ বুঝে নেওয়ার চেষ্টা করেছে।

সিটি করপোরেশনের আইনজীবী ইমতিয়াজ মঈনুল ইসলাম বলেন, বোরাক ২০০৬ সাল থেকে নির্মাণকাজ শুরু করে। আদালত বলেন, সেখান থেকে এখন পর্যন্ত করপোরেশন কত টাকা আয় করেছে? তখন ইমতিয়াজ মঈনুল ইসলাম বলেন, ৪৫২ কোটি টাকার সম্পত্তি বুঝে নেওয়া বাকি আছে। এ জন্য গত ২ মার্চ পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

শুনানির একপর্যায়ে আদালত বলেন, অনুমোদন ছাড়া ভবন নির্মাণ করে কীভাবে? তখন বোরাকের আইনজীবী রমজান আলী শিকদার বলেন, ২৮ তলা করা হয়েছে সিটি করপোরেশনের অনুমোদন নিয়েই। সিটি করপোরেশনের নিজস্ব সম্পত্তি হওয়ায় রাজউকের কাছে যেতে হয় না। সিটি করপোরেশন নিজেই পরিকল্পনা অনুমোদন করে। শুনানি নিয়ে আদালত রুলসহ আদেশ দেন।

সিটি করপোরেশন ও বোরাকের সঙ্গে চুক্তির পর ওঠা প্রশ্নগুলো মীমাংসা করতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না এবং আইন অনুসারে স্পেস শেয়ারসহ সিটি করপোরেশনের বকেয়া সুবিধাদি আদায়ের কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, রুলে তা জানতে চাওয়া হয়েছে। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সচিব, রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) চেয়ারম্যান, দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান, পরিবেশ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র এবং বোরাক রিয়েল এস্টেট প্রাইভেট লিমিটেডকে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।